Nation & World

যৌন অভিপ্রায় ছাড়া নাবালিকার পিঠে হাত দেওয়া অপরাধ নয়, বম্বে

কোনও যৌন অভিপ্রায় ছাড়াই একটি নাবালিকা মেয়ের পিঠে এবং মাথায় হাত দেওয়া শ্লীলতাহানির মতো কোনও অপরাধ নয়। একটি মামলার পরিপ্রেক্ষিতে এমনই পর্যবেক্ষণ বম্বে হাইকোর্টের নাগপুর বেঞ্চের। এই পর্যবেক্ষণ করে বম্বে হাইকোর্ট অভিযুক্ত এক যুবককে বেকসুর খালাস করেছে। বিচারপতি ভারতী ডাংগ্রের একক বেঞ্চ মামলার রায় দিতে উল্লেখ করেছে অভিযুক্ত ব্যক্তির কোনও যৌন অভিপ্রায় ছিল না এবং তার বক্তব্য থেকে বোঝা যায় যে তিনি নাবলিকাকে শিশু হিসাবেই দেখেছিলেন।

বেঞ্চের আরও পর্যবেক্ষণ, ‘একজন নাবালিকাকে যখন কেউ খারাপ উদ্দেশ্যে স্পর্শ করে তখন সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা যায়। কিন্তু এক্ষেত্রে অভিযুক্তের খারাপ উদ্দেশ্য ছিল না।’ উল্লেখ্য, ওই যুবকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছিল ২০১২ সালে। তখন তার বয়স ছিল ১৮ বছর। অভিযোগ, ওই যুবক ১২ বছর বয়সি কিশোরীর পিঠে হাত দিয়ে মন্তব্য করেছিল যে সে বড় হয়ে গিয়েছে।

বিচারপতি বলেন, মেয়েটি তার পক্ষ থেকে কোনও খারাপ উদ্দেশ্যের কথা বলেনি, তবে সে অস্বস্তিবোধ করেছিল। সেই কথায় আদালতকে জানিয়েছে। তাছাড়া যুবকের উদ্দেশ্য যে খারাপ ছিল তার কোনও প্রমাণও দিতে পারেননি আইনজীবী। তাই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ৩৫৪ ধারা যোগ করা ঠিক হয়নি।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালে ওই ঘটনার পরে থানায় অভিযোগ করে কিশোরীর পরিবার। তার ভিত্তিতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পরে নিম্ন আদালতে মামলাটি চলে। সেখানে বিচারক ওই যুবককে দোষী সাব্যস্ত করে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেয়। নিম্ন আদালতের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে পরে বম্বে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন ওই যুবক। মামলার শুনানির সময় নিম্ন আদালতের রায়কে ভুল বলে জানায় বম্বে হাইকোর্ট। কারণ ওই যুবক কোনওরকম যৌন অভিপ্রায় ছাড়ায় কিশোরীকে স্পর্শ করেছিলেন। অন্যদিকে মুম্বইয়ে একটি বেসরকারি কোম্পানির এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পোল্যান্ডের এক মহিলা নাগরিককে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। মহিলার অভিযোগ ২০১৬ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত মনীশ গান্ধী নামে ওই কর্মকর্তা তাঁকে একাধিবার ধর্ষণ করেছেন। ইতিমধ্যে থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন ওই মহিলা। তার ভিত্তিতে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

————– সমাপ্ত ————–

এই খবর ইউনিকাস প্রতিস্থাপন করেনি তাই এর কোনো কৃতিত্ব অথবা দ্বায়িত্ব ইউনিকাস এর নয়। দয়া করে এর উৎস টি খুঁটিয়ে দেখুন। এই পোস্ট টি আপত্তিকর হলে, তা অবিলম্বে মুছে ফেলতে আমাদের সত্বর যোগাযোগ করুন।